1. admin@newsnarayanganjbd.com : newsnarayanganj :
  2. robinnganj@gmail.com : newsnganj newsnganj : newsnganj newsnganj
শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:৫৫ অপরাহ্ন

প্রধান শিক্ষক বদলী হলেও অধরা শওকত সিন্ডিকেট!

নিউজ নারায়ণগঞ্জ বিডি ডট নেট
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২৯ নভেম্বর, ২০১৯
  • ২১১ জন সংবাদটি পড়েছেন
প্রধান শিক্ষক বদলী হলেও অধরা শওকত সিন্ডিকেট!

নিজস্ব প্রতিবেদক : নারায়ণগঞ্জ সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোস্তফা আবুল কালামকে বদলী করা হলেও এখন বহাল তবিয়তে রয়েছেন দূর্ণীতিবাজ শিক্ষক শওকত ও তার সিন্ডিকেট সদস্যরা। একটি সূত্র জানিয়েছে, শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ইংরেজী এন অদাক্ষরের একজন বড় ভাইয়ের আর্শিবাদে শিক্ষক শওকত আলী রয়েছেন ধরা ছোয়ার বাইরে। অভিযোগ উঠেছে নারায়ণগঞ্জের শিক্ষা সংশ্লিষ্ট অনেকেই অবৈধ অর্থের ভাগ পেয়ে থাকেন। এদিকে রবিবার ভোক্তভোগী একটি অভিভাবক গ্রুপ শিক্ষক শওকত আলী ও তার সিন্ডিকেটের দূর্ণীতির প্রমানসহ দুদুকে যাচ্ছেন। তারা সরকারী এ বালিকা বিদ্যালয়টি দূর্ণীতিমুক্ত করতে এ উদ্যোগ নিয়েছেন বলে এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।
তাদের কাছ থেকে বেরিয়ে আসছে নতুন নতুন তথ্য। এবার বিদ্যালয়ের টিফিন বানিজ্যের সঙ্গেও ইংরেজী শিক্ষক শওকত আলী জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই বিদ্যালয়েরই একজন অভিবাবক ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক আবদুস সালাম। তার মেয়ে পড়তো এই স্কুলে। গতকাল তিনি এ বিষয়ে বলেছেন, এই ভর্তি বাণিজ্যের অন্যতম হোতা প্রধান শিক্ষক মোস্তফা আবুল কালাম ইতিমধ্যে বদলী হয়ে চলে গেছেন সে এবং শওকত আলী শুধু ভর্তিবাণিজ্য নয় স্কুলের ভেতরে ছাত্রীদের টিফিন বাণিজ্যের সাথে জড়িত সেখানেও তারা লক্ষ লক্ষ টাকা অবৈধভাবে উপার্জন করে থাকেন। জেলা প্রশাসন বিষয়টি জেনে ও কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। ইতিপূর্বে অষ্টম শ্রেণীর কোচিং এর সময় জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম অভিভাবকদের অভিযোগ তদন্ত করে প্রমাণ পাওয়ার পরও অজ্ঞাত কারণে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। এরকম কমপক্ষে ১০ জন শিক্ষক ভর্তি বাণিজ্য এবং কোচিং ব্যবসার সাথে জড়িত। বিগত ১০ বছরের অধিক সময় ধরে একই স্কুলে অবস্থান করে যারা ভর্তি বাণিজ্য করছেন তাদেরকে যদি বদলি না করা হয়। তাহলে এই অবস্থা পরিবর্তন ঘটবে না। তিনি দৈনিক শীতলক্ষায় এই বিদ্যালয়ের নানা রকম দূর্ণীতি নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করায় শীতলক্ষার প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং অবিলম্বে দূর্ণীতিবাজ শিক্ষকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এদিকে সূত্রমতে আরো জানা গেছে, এবার দূর্ণীতিবাজ শিক্ষক শওকত আলী এবং তার স্ত্রী ঢাকা বোর্ডে দৌড়ঝাপ শুরু করেছে। বোর্ডের একজন কর্মকর্তাকে দিয়ে নারায়ণগঞ্জের শিক্ষা প্রশাসনের উপর চাপ সৃষ্টির চেষ্ঠা করছেন। পাশাপাশি লোকাল প্রশাসনকেও ম্যানেজ করার চেষ্ঠা চলছে। টানা দেড় যুগের বেশি সময় শওকত আলী এবং তার সিন্ডিক্যাট সরকারী এই বিদ্যালয়টিকে হাতিয়ার করে নানা ভাবে শোষন করছে অভিবাক মহলকে। আর নিজেরো হচ্ছে কোটি কোটি টাকার মালিক। অভিবাবকরা জানিয়েছে এক সময় শওকত আলী দম্পত্তি টাকার অভাবে রীতিমতো কষ্টে জীবনযাপন করতো। তখন সবার সাথে নরম সুরে কথা বললেও এখন বহু কোটি টাকার সম্পত্তি ও নগদ টাকার মালিক হওয়ায় ওরা এখন কোনো কিছুকেই তোয়াক্কা করছে না। শওকতের স্ত্রী শামিমা এখন ডিসি এডিসি এমন কি বড় বড় রাজনীতিবিদদের সাথে তার সখ্যতা থাকার দাবি করছে। আর সাংবাদিকদের টাকা দিয়ে কিনা যায় বলেও দম্ভোক্তি করছে। তারা মনে করেন টাকা হলে সব হয়, কোনো কিছুতেই আটকানো যায় না। আর এখন তাদের হাত রয়েছে মোটা অংকের টাকা। আর এই টাকাকে হাতিয়ার করেই নয়া মিশন নিয়ে মাঠে নেমেছে এই দম্পত্তি। তারা যেকোনো মূল্যে প্রশাসনকে ম্যানেজ করার জন্য চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাই শেষ পর্যন্ত তারা কি করতে পারেন বা কি করতে চান সেটাই দেখার বিষয়। প্রশাসন কি ব্যবস্থা নেয় সেদিকেও রয়েছে সাংবাদিক মহলের নজর।

সংবাদটি আপনার ভাল লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

এ বিভাগের আরও সংবাদ